১৯ মার্চ ২০১৯ ৬:০:২৫
logo
logo banner
HeadLine
নিউ জিল্যান্ডে ভ্রমণ সতর্কতা জারি করেছে বাংলাদেশ * নির্বাচন শেষে ফেরার পথে বাঘাইছড়িতে গুলিতে প্রিজাইডিং অফিসারসহ নিহত ৬ * '৩০ সেকেন্ড এদিক-ওদিক হলেই আমাদের লাশ দেশে ফিরতো' * বাংলাদেশের বিপ্লব, স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং জাতির পিতার নেতৃত্ব * যেখানে জনক তুমি মৃত্যুঞ্জয়ী * বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা * বাঙালির একমাত্র মহানায়ক * ক্রাইস্টচার্চে হামলায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক এবং নিন্দা, সারাদেশে নিরাপত্তা জোরদার * ক্রাইস্টচার্চে হামলায় ৩ বাংলাদেশীসহ নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯ * বিশ্বজুড়ে ফেইসবুক ব্যবহারে সমস্যা হচ্ছে * একদিনে চার রকম কথা বললেন নুর * রোহিঙ্গাদের কোথায় রাখা হবে তা বাংলাদেশের নিজস্ব বিষয় * শিক্ষার জন্য শিশুদের অতিরিক্ত চাপ দেওয়া উচিত নয়: প্রধানমন্ত্রী * ওবায়দুল কাদেরের অবস্থার আরও উন্নতি, আইসিইউ থেকে নেয়া হয়ছে কেবিনে * ডাকসু নির্বাচন : ভিপি নুর, জিএস রাব্বানী * সিইসির খন্ডিত বক্তব্য নিয়ে বিতর্ক করা উচিত নয় - মাহবুব-উল আলম হানিফ * প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচন: আ.লীগ ৫৫, অন্যান্য ২৩, স্থগিত ৯ * আহমদ শফীকে নিয়ে মেননের বক্তব্য একপাঞ্জ চাইলেন কাজী ফিরোজ রশীদ * ডাকসু নির্বাচন কাল: একনজরে প্যানেল পরিচিতি * আত্মত্যাগ ছাড়া কোনো কিছু অর্জন সম্ভব না : প্রধানমন্ত্রী * লাইফটাইম কন্ট্রিবিউশন ফর উইমেন এম্পাওয়ারমেন্ট পদক পেলেন শেখ হাসিনা * চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার ঘিরে উন্নয়ন মহাযজ্ঞ, খুলে যাচ্ছে বিনিয়োগের অফুরান দুয়ার * ৩৫ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ চেয়ে সৌদির সাথে বিদ্যুত, জ্বালানি ও জনশক্তিসহ কয়েকটি এবং সমঝোতা স্মারক সই * কৃত্রিম সাপোর্ট ছাড়াই স্বাভাবিকভাবে কাজ করছে ওবায়দুল কাদেরের হৃদপিন্ড * ৭ মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধুর আত্মপ্রত্যয়ের স্বরূপ * ওবায়দুল কাদেরের অবস্থার কিছুটা উন্নতি, করা হবে বাইপাস সার্জারি * সংসদ সদস্যরা নিজস্ব নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন, গানম্যান চেয়েছেন ৫০ এমপি * যুদ্ধ যুদ্ধ উত্তেজনা ও আমাদের সামাজিক আচরণ * হৃদরোগে সঙ্কটাপন্ন ওবায়দুল কাদের * শাসক নয়, সেবক হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি: প্রধানমন্ত্রী *
     19,2017 Monday at 08:51:52 Share

ফিটনেসবিহীন ট্রলারেই সীতাকুণ্ড-সন্দ্বীপ রুটে ঝুকিপূর্ণ ঈদযাত্রা

ফিটনেসবিহীন ট্রলারেই সীতাকুণ্ড-সন্দ্বীপ রুটে ঝুকিপূর্ণ  ঈদযাত্রা

সীতাকুণ্ড-সন্দ্বীপ রুটে ৭টি ফেরিঘাটে ১৪টি ট্রলারের কোনোটিতেই ফিটনেস নেই। যার ফলে ঈদে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাড়ি ফিরতে হবে যাত্রীদের, এমনটাই বলছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রতিবছর ঈদযাত্রায় এ রুটে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাইয়ের ফলে ট্রলারডুবিতে প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। এবছরও একদিকে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া অন্যদিকে ফিটনেসহীন ট্রলারে সন্দ্বীপ চ্যানেল পাড়ি দিতে হবে যাত্রীদের।


উল্লেখ্য, সন্দ্বীপ চ্যানেলে যাত্রী উঠানামা করার জন্য সীতাকুণ্ড এলাকায় ৭টি ফেরিঘাট রয়েছে। ঘাটগুলো হলো- সৈয়দপুরে বাঁকখালী ঘাট, মুরাদপুরে আমির মোহাম্মদ ফেরিঘাট ও ফকিরহাট ফেরিঘাট, বাড়বকুণ্ড ফেরিঘাট, বাঁশবাড়িয়া ফেরিঘাট, কুমিরা ফেরিঘাট ও ভাটিয়ারী টোবাকো ঘাট। এই ঘাটগুলো দিয়ে প্রতিনিয়তই যাত্রী উঠানামা করছে। জেলা পরিষদ কর্তৃক ইজারা দেয়ার সময় শর্ত থাকে যে, যাত্রীবাহী ট্রলারে মালামাল আনা নেয়া যাবে না। প্রত্যেক ট্রলারে দুর্যোগ মোকাবেলা করার জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম রাখতে হবে।


ফেরিঘাট কর্তৃপক্ষ এবং ট্রলারের যাত্রীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সীতাকুণ্ড থেকে ৭টি ঘাটে সন্দ্বীপে প্রতিদিন যাতায়াত করে প্রায় দুই হাজার যাত্রী। ঈদের সময় এ সংখ্যা বেড়ে আড়াই থেকে তিন হাজার পর্যন্ত হয়। প্রতিটি ঘাটে প্রতিদিন সকাল-দুপুর দুটি ট্রলার সন্দ্বীপের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। এগুলোর একটিরই ফিটনেস নেই। ট্রলার মালিকরা ফিটনেস কোন কর্তৃপক্ষ থেকে নেবেন তাও নাকি জানেন না। অথচ এসব ট্রলারে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন সন্দ্বীপ চ্যানেলে যাত্রী আসা-যাওয়া করছে। জানা গেছে, চট্টগ্রাম থেকে সন্দ্বীপ নৌপথে নিয়মিত চারটি যাত্রীবাহী জাহাজ থাকলেও বর্তমানে একটিমাত্র সচল আছে। এবারের ঈদে এই জাহাজের উপর ভরসা করে যাত্রীদের চট্টগ্রাম থেকে সন্দ্বীপ যেতে হবে। যার কারণে ঈদে যাত্রীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারেই সন্দ্বীপে যেতে হবে।


কুমিরা ফেরিঘাট ও ভাটিয়ারী টোবাকো ঘাটে গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিটি ট্রলারে ৭০ জন যাত্রী উঠার ক্ষমতা থাকলেও সেখানে ১২০-১৫০ জন যাত্রী উঠছেন। পাশাপাশি মালামালও বহন করা হচ্ছে। ঘাট ইজারাদার তাতে বাঁধা না দিয়ে বরং যাত্রীদের ট্রলারে উঠতে উৎসাহ দিতে দেখা গেছে।


যাত্রীরা জানান, ‘সমুদ্রগামী ট্রলারে জীবনরক্ষাকারী বয়া, জ্যাকেট, রেডিও, অগ্নিনির্বাপণ যন্ত্র, অতিরিক্ত লাইফ জ্যাকেট ও দিক নির্ণায়ক যন্ত্র থাকার কথা থাকলেও এখানে এসব নেই। তাই দমকা হাওয়া ও ঝড়-বৃষ্টিতে নাজুক এসব ট্রলার ডুবে প্রাণহানির সম্ভাবনা প্রচুর।’


ভাটিয়ারী টোবাকো ঘাটের ম্যানেজার জসিম উদ্দিন জানান, ‘ট্রলার স্বল্পতার কারণে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করতে হচ্ছে। এছাড়া অতিরিক্ত যাত্রী ট্রলারে না উঠার জন্য বললেও তারা শোনেন না।’ বেশি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি জানান, ‘ঈদ উপলক্ষে যাত্রীদের কাছ থেকে একটু বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।’


এদিকে নৌপথে সন্দ্বীপবাসীর দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন ‘আমরা সন্দ্বীপবাসী’ নামে একটি সংগঠন। ঈদ উপলক্ষ্যে অন্তত সমুদ্র পারাপারের বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা থাকলেও তা এখন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।


এদিকে অভিযোগ আছে, অধিক মুনাফার লোভে জেলা পরিষদের ইজারাদার স্টিমারের পরিবর্তে অবৈধ মালবাহী বোট ও ঝুঁকিপূর্ণ স্পিড বোডে যাত্রী পারাপার করছে। যার ফলে প্রায় সময় যাত্রীদের সমুদ্রে পড়ে যাওয়া ও যাত্রী নিয়ে মাঝপথে নৌযান অচল হয়ে যাওয়ার মত ঘটনা ঘটছে। এসময় সমুদ্র উত্তাল থাকে। তাই এসময়ে দুঘটনার সম্ভাবনাও থাকে বেশি।


যাত্রীদের অভিযোগ, স্পিডবোটের ভাড়া ৩০০ টাকা হলেও ঈদে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়া হয়। তাই অবৈধ নৌযানে যাত্রী পারাপারের পাশাপাশি যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। গত ঈদের আগে নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর বিশেষ হস্ত েপে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী স্টিমার সার্ভিসে ১৩০ টাকা ভাড়া নির্ধারিত হয়। কিন্তু নির্ধারিত ভাড়ার সাথে ইজারাদাররা দুই তীরে নিরাপদে উঠানামার নামে যাত্রীপ্রতি ১০ টাকা করে অতিরিক্ত ২০ টাকা নেয়। কিন্তু ঘাটের ইজারাদার উঠানামার জন্য পর্যাপ্ত ছোট নৌকা রাখেন না। যার ফলে যাত্রীরা বাধ্য হয়ে বাড়তি ভাড়া দিয়ে অন্য নৌকায় করে জাহাজ থেকে তীরে নেমে আসেন। এছাড়াও মালের ভাড়ার নামে রীতিমত নৈরাজ্য চালানো হচ্ছে। নিয়ম অনুযায়ী বিভিন্ন নৌযানে যাত্রীর সাথে থাকা ৩০ থেকে ৪০ কেজি পর্যন্ত মালামালের জন্য ভাড়া দিতে হয় না। কিন্তু কুমিরা-গুপ্তছড়া ঘাটে ১৫ কেজির অতিরিক্ত মালামালের জন্য কেজি প্রতি তিন টাকা হারে মাশুল আদায় করা হয়। তারপরও যাত্রীরা সময় সাশ্রয় এবং দ্রুত পারাপারের জন্য অনেক সময় স্পিড বোটে যাতায়াত করে থাকেন।


‘আমরা সন্দ্বীপবাসীর অভিযোগ’, কুমিরা-গুপ্তাছড়া ঘাট থেকে জেলা পরিষদ বছরে কয়েক কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করে। কিন্তু যাত্রীদের নিরাপদে উঠানামার জন্য কোনো উদ্যোগই তারা নেয়নি। দীর্ঘদিন জেলা পরিষদ দুই তীরে কোনো যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করেনি। যার ফলে রোদ কিংবা বৃষ্টিতে যাত্রীদের খোলা আকাশের নীচেই অপেক্ষা করতে হয়। বড় নৌযান থেকে নেমে কখনো কোমর, কখনো বুক সমান পানি ডিঙিয়ে জীবন বাজি রেখে সন্দ্বীপের যাত্রীদেরকে কূলে উঠতে হয়।


সুত্রঃ দৈনিক আজাদী

User Comments

  • সন্দ্বীপের সুখ দুঃখ