১৫ নভেম্বর ২০১৮ ১২:৩৭:৩০
logo
logo banner
HeadLine
'ষড়যন্ত্র চলছে সবাই সতর্ক থাকুন, বিদ্রোহী হলে আজীবন বহিষ্কার' - মনোনয়ন প্রত্যাশীদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী * বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় 'গাজা', ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত * এক আসনেই ৫২ মনোনয়ন,৭টিতে ১টি করে, আওয়ামীলীগের মোট ফরম বিক্রি ৪০২৩ * বংগবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার মধ্য দিয়ে সন্দ্বীপের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা একত্র হয়ে ফরম জমা দিলেন * আওয়ামী লীগ মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাতকার কাল * ৭ দিন পেছালো নির্বাচন, ৩০ ডিসেম্বর ভোট * অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করা সরকারের উদ্দেশ্য - প্রধানমন্ত্রী * আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম নেয়া ও জমা শেষ হচ্ছে আজ , ১৪ নভেম্বার সকালে সাক্ষাতকার * শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচনে সব দল ও জোট, স্বাগত জানালেন তিনি * সাকিবকে খেলা চালিয়ে যেতে বললেন প্রধানমন্ত্রী * ৬৮ শতাংশ তরুণ ভোটার শেখ হাসিনার কর্মকাণ্ডে সন্তুষ্ট * মনোনয়ন না পেলে করণীয় নিয়ে অঙ্গীকার নিচ্ছে আওয়ামীলীগ,চলছে ফরম উৎসব, দুইদিনে ফরম কিনলেন ৩২০০ জন * ভোটে যাচ্ছে ঐক্যফ্রন্ট : বিএনপিসহ বৈঠকে সিদ্ধান্ত, আজ দুপুরে প্রেসক্লাবে আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত ঘোষণা * আওয়ামী লীগ সংসদীয় বোর্ডের সভা আজ * নির্বাচনে যাচ্ছে বিএনপি, ঘোষণা আজকালের মধ্যেই * বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু * আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু আজ, সরগরম সভানেত্রীর কার্যালয় * নির্বাচন সামনে রেখে হার্ডলাইনে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী , অস্থিতিশীল পরিস্থিতি মোকাবেলায় কঠোর ব্যবস্থা * সরকার শুধু রুটিনওয়ার্ক করতে পারবে , আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে ব্যবস্থা নেবে কমিশন * ২৩ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহন * চট্টগ্রাম জেলা ও মহানগরের সাড়ে ৩ হাজার সন্ত্রাসী : বাঁশখালি ও সন্দ্বীপে রয়েছে অস্ত্র তৈরির একাধিক কারখানা , শীঘ্রই বিশেষ অভিযান * সৈয়দ আশরাফের সুস্থতা কামনায় আগামীকাল বাদআছর দেশব্যাপী দোয়া মাহফিল * খালেদা তারেকের অধ্যায় শেষ, সুস্থ ধারার পথে রাজনীতি * আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায় করবো: মির্জা ফখরুল * তফসিল ঘোষণা কাল সন্ধ্যা ৭টায় * সংলাপ শেষ তবে আলোচনা হতে পারে, নির্বাচন পেছানো ও উপদেস্টা নিয়োগের প্রস্তাব নাকচ - কাদের * আজ গনভবনে ফের সংলাপে যাচ্ছেন ঐক্যফ্রন্টের ১১ নেতা * ঐক্যফ্রন্টে মিনি ক্যু এবং শেখ হাসিনার জন্য একটি সাবধান বাণী * বিএনপির নেতৃত্বে থাকতে পারছেন না খালেদা ও তারেক * সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আপোষহীন সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে: ড. কামাল *
     06,2018 Tuesday at 08:17:34 Share

নির্বাচন হচ্ছে মানুষের ভোটের অধিকার, সে ভোটাধিকার প্রয়োগের নিশ্চয়তা দিলেন শেখ হাসিনা

নির্বাচন হচ্ছে মানুষের ভোটের অধিকার, সে ভোটাধিকার প্রয়োগের নিশ্চয়তা দিলেন শেখ হাসিনা

জনকণ্ঠ :: নির্বাচন হচ্ছে মানুষের ভোটের অধিকার। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তারা সে অধিকার প্রয়োগ করবে বলে নিশ্চয়তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী ও আওযামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার রাতে গণভবনে এরশাদের নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জাতীয় জোটের সঙ্গে সংলাপে তিনি একথা বলেন। রাত সাড়ে সাতটায় আনুষ্ঠানিক সংলাপ শুরুর কথা থাকলেও ১৫মিনিট আগেই তা শুরু হয়।


সংলাপের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে নেতাদের আমন্ত্রণ জানান। ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান জোট নেতাদের। এরপর স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্মিলিত জাতীয় জোটের পক্ষ থেকে বক্তব্য তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী বিশেষ দূত ও জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তবে প্রথমদিনে ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে ক্ষমতাসীন দলের সংলাপে গণভবনের সামনে উৎসুক জনতার যেমন ভীড় ছিল সোমবার তা দেখা যায়নি। জাতীয় পার্টি কিংবা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যেও কেউ আসেনি গণভবনের সামনে। সন্ধ্যা সাতটা থেকে একে একে আসতে থাকেন আমন্ত্রিত নেতারা। সাড়ে সাতটার আগেই সবাই গণভবনে প্রবেশ করেন। আওয়ামী লীগ সহ ১৪ দলের নেতারাও সময়মতো চলে আসেন। সংলাপ শেষে প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ায় ইতিবাচক বার্তা দেন এরশাদের নেতৃত্বাধীন জোটের নেতারা। এরপর জাপা চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।


সংলাপ সূত্রে জানা গেছে, সংলাপে এরশাদের জোটের পক্ষ থেকে আসন ভাগাভাগি ও অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবেশ নিশ্চিত করার বিষয়ে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। পাশাপাশি আন্তর্জাতিকভাবে নির্বাচনকে গ্রহণযোগ্য করতে সকল দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার কথা বলেন জোট নেতারা। সেইসঙ্গে কোন দল নির্বাচনে না এলেও জাতীয় পার্টি আসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে বলেও প্রধানমন্ত্রীকে নিশ্চিত করেন এরশাদ।


এক নবেম্বর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণভবনে ক্ষমতাসিন দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্ব ঐক্যফ্রন্ট নেতারা সংলাপে যোগ দেন। এরপর দুই নবেম্বর বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট নেতাদের সঙ্গে সংলাপ করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী। রবিবার ১৪ দলের নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন শেখ হাসিনা। সোমবার সংলাপ অনুষ্ঠিত হলো এরশাদের নেতৃত্বাধীন বিরোধী দলীয় জোটের সঙ্গে। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাম জোটের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপের কথা রয়েছে। এদিকে ছোট্ট পরিসরে সংলাপে বসতে ঐক্যফ্রন্টে পক্ষ থেকে আবারো আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার কাছে চিঠির প্রেক্ষিতে আগামী বুধবার ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে ফের সংলাপে বসবে আওয়ামী লীগ। বাংলাদেশ ন্যাপ ভাসানীর সঙ্গে আগামী ৭ নভেম্বর সংলাপের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের অব্যাহত দাবির প্রেক্ষিতে এক নবেম্বর থেকে সংলাপ শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী।


সংলাপে নির্বাচন নিয়ে আলোচনার চেয়ে একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সঙ্গে আসন ভাগাভাগিকেই গুরুত্ব দিচ্ছেন এরশাদ, যা তিনি দুদিন আগে প্রকাশ্য সমাবেশেই বলেন। অর্থাত আসন নিয়ে সংলাপে জাপার দরকষাকষিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। তবে সোমবার সন্ধ্যায় বনানীর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয় থেকে রওনা দেয়ার আগে ভিন্ন কথা বলেছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার ও সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা।


হাওলাদার বলেন, নির্বাচন নিয়ে আমাদেরও কিছু সুস্পষ্ট বক্তব্য আছে। আশা করবো, আমরা এমন একটি অবস্থায় পৌঁছাতে পারব, যেখান থেকে সুস্থ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে পারব। প্রতিমন্ত্রী রাঙ্গা বলেন, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে যা যা করণীয়, আমরা সেগুলো নিয়ে আলোচনা করব। এরপর স্ত্রী ও দলের জ্যেষ্ঠ কো চেয়ারম্যান বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ ও মহাসচিব হাওলাদারকে এক গাড়িতে নিয়ে সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে গণভবনের পথে রওনা হন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ। তারপর ছিল অন্য নেতাদের গাড়ি।


প্রধানমন্ত্রীর সূচনা বক্তব্য ॥ সংলাপের শুরুতে সূচনা বক্তব্যে দেশের উন্নয়নে সহযোগিতা করায় জাতীয় পার্টিকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, একটি অর্থবহ নির্বাচন হবে, এই নির্বাচনের মাধ্যমে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা থাকবে।


প্রধানমন্ত্রীর সরকারী বাসভবন গণভবনে নির্ধারিত সময়ের ১৫ মিনিট আগেই জাতীয় পার্টির সঙ্গে সংলাপ শুরু করেন শেখ হাসিনা। তিনি দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে জাতীয় পাটির সার্বিক সহযোগিতার ভূয়ুশী প্রশংসা করেন।


দেশ পুনর্গঠনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এদেশকে স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ থেকে তিনি উন্নতির পথে দেশকে উন্নতির পথে নিয়ে স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে রেখে গেছেন। জাতির পিতা বাংলাদেশকে যে স্বল্পোন্নত দেশে রেখে গেছে সেখান থেকে আমরা দেশকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত করতে সক্ষম হয়েছি, জাতির পিতার আদর্শের পথ ধরে। আমাদের এ পথযাত্রায় আপনারা জাতীয় পার্টি পাশে ছিলেন, আমাদের সাথে ছিলেন, আমরা একসাথে এ দেশকেএগিয়ে নিয়ে গেছি। তিনি বলেন, যেহেতু সামনে নির্বাচন, নির্বাচনকে সামনে রেখে সব দলের সাথে মতবিনিময় করছি। আমরা চাই একটা অর্থবহ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। আমাদের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় জাতীয় পার্টি পাশে ছিল। একসঙ্গে এদেশকে আমরা এগিয়ে নিয়ে গিয়েছি। জাতীয় পার্টির কাছে থেকে যে সহযোগিতা পেয়েছি এজন্য তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি।


প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন হচ্ছে মানুষের ভোটের অধিকার। তারা সে অধিকার প্রয়োগ করবে। তিনি বলেন, উন্নয়নের কাজগুলো চলছে। তা অব্যাহত থাকবে সেটাই আমাদের লক্ষ্য। সেটাই রাখতে হবে।


আওয়ামী লীগের ২৩ সদস্য॥ সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের ২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল সংলাপে যোগ দেন। এর মধ্যে ১৪ দলের শরিক নেতারাও রয়েছেন। সংলাপে অংশ নেয়া আওয়ামী লীগ সহ ১৪ দলের নেতাদের মধ্যে রয়েছেন, দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানন্ত্রী শেখ হাসিনা, সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যদের মধ্যে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ সংলাপে উপস্থিত ছিলেন।


সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যদের মধ্যে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফর উল্লাহ এবং ড. আব্দুর রাজ্জাক, আবদুল মতিন খসরু, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, সাবেক পানিসম্পদমন্ত্রী রমেশ চন্দ্র সেন, দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, ডা. দীপুমনি, আব্দুর রহমান, প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, দফতর সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ এবং আইন সম্পাদক শ. ম. রেজাউল করিমও উপস্থিত ছিলেন। ১৪ দলের শরিকদের মধ্যে সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ, খান মেনন জাসদ একাংশের সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, জাসদ আরেক অংশের কার্যকরী সভাপতি মাঈনুদ্দিন খান বাদল সংলাপে অংশ নেন।


জাতীয় জোটের ৩৩সদস্যের প্রতিনিধি দল ॥ এরশাদের নেতৃত্বে ৩৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল সংলাপে অংশ নেয়। যে কটি দল সংলাপে অংশ নিয়েছে এরমধ্যে সবচেয়ে ঢাউস প্রতিনিধি দল ছিল সম্মিলিত জাতীয় জোটের। জানা গেছে, ৩৩ সদস্য বহনকারী ২২টি গাড়ি গণভবনে সন্ধ্যা সাতটার আগেই প্রবেশ করে।


এরশাদ ছাড়া প্রতিনিধি দলের অন্য সদস্যরা হলেন- জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি, কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি, মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, মুজিবুল হক চুন্নু এমপি, সালমা ইসলাম এমপি, ফখরুল ইমাম এমপি, এমএ ছাত্তার, অধ্যাপক দেলোয়ার হোসন খান, আলহাজ সাহিদুর রহমান, শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, সুনীল শুভ রায়, এসএম ফয়সল চিশতী, মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, আজম খান, সোলায়মান আলম শেঠ, আতিকুর রহমান আতিক, মেজর (অব.) খালেদ আক্তার, সফিকুল ইসলাম সেন্টু, শামীম হায়দার পাটোয়ারী, যুগ্ম মহাসচিব লিয়াকত হোসেন খোকা এমপি ও নুরুল ইসলাম ওমর এমপি। এছাড়া রয়েছেন- বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান মাওলানা এমএ মান্নান, মহাসচিব এমএ মতিন, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাহফুজুল হক, যুগ্ম মহাসচিব জালাল আহমেদ, জাতীয় ইসলামী মহাজোটের চেয়ারম্যান আবু নাসের ওয়াহেদ ফারুক ও বিএনএ’র চেয়ারম্যান সেকেন্দার আলী মনি।


এর আগে সংলাপ চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে চিঠি দেন জাতীয় পার্টি নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জাতীয় জোটের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। প্রধানমন্ত্রী সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় তাদের গণভবনে আমন্ত্রণ জানান জোট নেতাদের। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ৫৯দলের সম্মিলিত জাতীয় জোট গঠন করেন এরশাদ। দেশের রাজনীতিতে বর্তমানে সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক জোট এটি। তবে ৫৯ দলের মধ্যে মাত্র তিনটির নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধন রয়েছে।


রাতের খাবার ॥ সংলাপের শুরুতে নেতাদের শরবত, চিপস, বাদাম, ফল সহ নাস্তা দেয়া হয়। এরপর রকমারি খাবারের আয়োজনে নৈশভোজে অংশ দেন সম্মিলিত জাতীয় জোটের নেতারা।


 

User Comments

  • জাতীয়