১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ ১২:৩৩:৩৮
logo
logo banner
HeadLine
আমিরাতের সঙ্গে চার সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর, বিনিয়োগের নতুন দ্বার উন্মোচন * এবার বেসরকারী ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে খরচ পড়বে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ টাকা * কৌশলে রাজনীতিতে থাকতে চাইছে জামায়াত, পুরনো বোতলে নতুন মদ * ইয়াবাকারবারিদের আত্মসমর্পণ: সাড়ে তিন লাখ ইয়াবা ও ৩০ অস্ত্র জমা * প্রধানমন্ত্রীকে ৯৮ দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান, আন্তর্জাতিক সংস্থার অভিনন্দন * বিলুপ্তি ও ক্ষমা প্রার্থনার আহবান জানিয়ে জামায়াত ছাড়লেন ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক * বঙ্গবন্ধুকে মুছে ফেলে খুবই চালাকির সঙ্গে ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছিল * দ্রুতগতিতে চলছে ১০ মেগা প্রকল্প ও ১০০ অর্থনৈতিক অঞ্চলের নির্মাণকাজ * ভবিষ্যতে তরুণদের সুযোগ করে দিতে চাই - শেখ হাসিনা * একদিন আগেই শুরু হল বিশ্ব এজতেমা * ছয় দিনের সফরে প্রধানমন্ত্রী আজ জার্মানি যাচ্ছেন * ২৮ দিনে জমির নামজারি , সর্বোচ্চ ৫৩ দিনে নক্সা অনুমোদন, ভবন নির্মাণে বীমা বাধ্যতামুলক * ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য উন্নত দেশ গড়তে চাই - প্রধানমন্ত্রী * ঠাকুরগাঁওয়ে বিজিবি গ্রামবাসী সংঘর্ষ, নিহত চার * কর্ণফুলী টানেল : চট্টগ্রাম হবে ওয়ান সিটি টু টাউন * ১১ মার্চ ডাকসু নির্বাচন * 'জয় বাংলা' মুক্তিযুদ্ধের স্লোগান, বীর বাঙালীর স্লোগান * সব হজযাত্রায় খরচ বেড়েছে * ডাকসু'র তফসিল আজ * অল্প জমি ও মাটি ছাড়া সবজি, ফুল, ফল উৎপাদনের প্রযুক্তিকে চাষী পর্যায়ে নিয়ে যান - কৃষিমন্ত্রী * আরও ১২২ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর নাম ঘোষণা * রোহিঙ্গাদের জন্য নিরাপদ বাসস্থান চায় ঢাকা * হিন্দুকুশের বরফ দ্রুত গলছে : ভেসে যাবে দশ নদীর অববাহিকা , বিপন্ন হবে ২শ' কোটি লোক * উপজেলা নির্বাচনে ৮৭ চেয়ারম্যান প্রার্থীর নাম ঘোষণা করল আওয়ামীলীগ, ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীতা থাকবে উন্মুক্ত * জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনে আওয়ামী লীগের ঘোষনা * শিশুদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে আজ * দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার বাস্তবে রূপ দিতে হবে * সব ধরনের কোচিং বাণিজ্য বন্ধে সরকারের নীতিমালা বৈধ: হাইকোর্ট * সন্দ্বীপ-চট্টগ্রাম ব্রিজ নির্মাণের সম্ভাব্যতা যাচাই ও সন্দ্বীপে একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের আহবান জানালেন প্রধানমন্ত্রী * ২১ গুণীজনের ২১শে পদক লাভ *
     02,2018 Sunday at 09:14:42 Share

রোহিঙ্গাদের অস্থায়ী সুন্দর জীবনের হাতছানি ভাসানচরে , বিপুল অর্থ ব্যয়ে গড়ে উঠেছে সুন্দর বাসস্থান

রোহিঙ্গাদের অস্থায়ী সুন্দর জীবনের হাতছানি ভাসানচরে , বিপুল অর্থ ব্যয়ে গড়ে উঠেছে সুন্দর বাসস্থান

বর্বরোচিত সেনা অভিযানে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে ওরা মরেছে হাজারে হাজারে। ভাগ্য বিড়ম্বিত হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে লাখে লাখে। ফিরিয়ে নেয়ার কথা বলেও মিয়ানমার নানা ছলচাতুরিতে লিপ্ত। ফলে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া গেছে থমকে। কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফে ৩০ শিবিরে ওরা এখন আশ্রিত। ত্রাণসহ সব ধরনের সুবিধা নিয়ে ওরা জীবনকে এগিয়ে নিচ্ছে। এরপরও তারা বাস্তুহারা। নিজ দেশে কখনও নির্বিঘ্নে এবং নাগরিকত্বের অধিকার নিয়ে ফিরে যাবে এখনও তা অনিশ্চিত। এর মধ্যে ভাসানচরে ওদের জন্য নির্মিত হয়েছে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত বাসস্থল। সরকারী বিপুল অঙ্কের অর্থ ব্যয়ে ইতোমধ্যে ভাসানচরে গড়ে উঠেছে অনিন্দ্য সুন্দর হাউস। যেখানে ওরা বসবাস করতে পারবে নিজ দেশে ফিরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত।


সদিচ্ছা, ভিশন থাকলে যে কোন কঠিন কাজও যে সম্পন্ন করা যায় সম্প্রতি এর একটি অসাধারণ উদাহরণ বংগোপসাগর বক্ষে জেগে ওঠা ভাসানচর। যে চরে ইতিপূর্বে কোন জনবসতি ছিল না। সে চরটি এখন বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে ঝড় জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষার উপায়ে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে বসবাস উপযোগী। প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রায়ণ প্রকল্প-৩’র আওতায় ২৩শ’ কোটি টাকার বরাদ্দ নিয়ে ইতোমধ্যে ১৭শ’ কোটি টাকারও বেশি ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে লালটিনে আচ্ছাদিত পাকা দেয়ালের হাউস। যেখানে রয়েছে জীবন ধারণের সকল উপাদান। এ চরেই রোহিঙ্গাদের একটি অংশকে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনায় সরকার এককভাবে নৌবাহিনীর সদস্যদের দিয়ে এই চরকে বসবাস উপযোগী করে তুলেছে। প্রায় ত্রিশ বছর আগে জেগে ওঠা এ চরটি শুধু গোচারণ ভূমি ছিল, সেখানে এখন মানুষের জীবন ধারণের সকল উপকরণ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। যা রীতিমতো বিস্ময়কর। ১৩ হাজার একর বিশিষ্ট এ চরের মাত্র ১৭০২ একর এলাকায় বেড়িবাঁধ নির্মাণ করে এর অভ্যন্তরে নির্মিত হয়েছে জাতিসংঘ প্রদত্ত নিয়মনীতির চেয়েও বেশি উপকরণ সমৃদ্ধ বসতবাড়ি।


গত ১৫ নবেম্বর মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনের দিনে রোহিঙ্গারা নিজ দেশে ফিরে যাবে না বলে আওয়াজ তুললে পুরো প্রক্রিয়া থমকে যায়। এ প্রক্রিয়া কখন শুরু হবে তা এখনও অনিশ্চিত। আর মিয়ানমার আদৌ ভবিষ্যতে প্রত্যাবাসন শুরু করলে তা দিনে দেড় শ’ থেকে সর্বোচ্চ ৩শ’ হবে। সরকার পক্ষে বিষয়টি আগেভাগে আঁচ করতে পেরে জনমানবশূন্য ভাসানচরকে বসবাস উপযোগী করার পরিকল্পনা গ্রহণ করে। যা আশ্রায়ণ প্রকল্পের অধীনে। অত্যন্ত দ্রুততম সময়ে এটি এখন প্রস্তুত। সংখ্যায় যাই হোক প্রথম পর্যায়ে ১ লাখ রোহিঙ্গাকে সেখানে স্থানান্তরের প্রক্রিয়া রয়েছে। উন্নয়ন পরিকল্পনায় জড়িতদের বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, ভবিষ্যতে আরও ২ লাখ মানুষকে সেখানে স্থানান্তরের অবকাঠামোগত সুবিধা সৃষ্টি করার সুযোগ রয়েছে। পুরো দ্বীপটি যেখানে ১৩ হাজার একরের, সেখানে বিপুল পরিমাণ জমি এখনও ব্যবহারের সুবিধা রয়ে গেছে।


সূত্র জানিয়েছে, সোলার সিস্টেমে নব নির্মিত বাড়িঘর বিদ্যুতায়িত হয়েছে। গবাদি পশুও সেখানে চাষ হচ্ছে। প্রতিটি হাউসের প্রতিটি কক্ষ স্ট্যান্ডার্ড সাইজের। যেখানে রয়েছে বাথরুম ও টয়লেট ফ্যাসিলিটিজ। সরকারের গৃহীত এ প্রকল্পে ব্যয় হয়েছে ১৭শ’ কোটি টাকা। বরাদ্দের আরও ৬শ’ কোটি টাকা অবশিষ্ট রয়েছে। এখন শুধু অপেক্ষার পালা রোহিঙ্গাদের কখন স্থানান্তরিত করা হচ্ছে। প্রতিষ্ঠিত স্থাপনাসমূহের কারুকাজ এবং সোলার সিস্টেমে রাতের বেলায় বিদ্যুতের আলো ঝলমলে পরিবেশ এদেশের সহায়-সম্বলহীন যে কোন মানুষকেও আকৃষ্ট যে করবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। ফলে অস্থায়ীভাবে রোহিঙ্গাদের সেখানে পুনর্বাসন করা হলে উখিয়া টেকনাফের স্থায়ী বাসিন্দাদের কাঁধে ভর করে থাকা বিপর্যয় পরিস্থিতি কিছুটা অবসান ঘটবে।


এদিকে, প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া থমকে গেছে। আর দেশে এসেছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনী ডামাডোলে প্রশাসনযন্ত্র যেমন ব্যাপক তৎপর, তেমনি এদেশের মানুষ রয়েছে এখন উৎসবমুখর পরিবেশে। এ অবস্থায় রোহিঙ্গাদের বাছাই করে উখিয়া টেকনাফ থেকে চট্টগ্রাম হয়ে বা অন্য কোন পথে সেখানে নেয়ার বিষয়টি কখন শুরু করা যাবে তা এখনও নিশ্চিত করা যায়নি। ঝড়-জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষায় নির্মিত হয়েছে দৃষ্টিনন্দন সুউচ্চ বেড়িবাঁধ, রয়েছে স্যুয়ারেজ সিস্টেমসহ অন্যান্য সুবিধা। যারা যাবে সেখানে তাদের জীবিকা নির্বাহের বিভিন্ন কর্মসূচীও নিয়েছে সরকার। জনকন্ঠ।

User Comments

  • জাতীয়