২৪ নভেম্বর ২০২০ ১৭:৫৫:৫৩
logo
logo banner
HeadLine
বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহারে আরো কঠোর হতে পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার * ২৩ নভেম্বার : দেশে শনাক্ত আরও ২৪১৯, মারা গেছেন ২৮, সুস্থ ২১৮৩ জন * ২৫ পৌরসভার নির্বাচন ২৮ ডিসেম্বর * মূর্তি বা ভাস্কর্য মানেই শিরকের উপকরণ নয়: হাফেজ মাওলানা জিয়াউল হাসান * ২২ নভেম্বার : দেশে আজ শনাক্ত ২০৬০, মারা গেছেন ৩৮, সুস্থ ২০৭৬ জন * অক্সফোর্ডের গবেষণা : ছয় মাসের মধ্যে দ্বিতীয়বার সংক্রমণের সম্ভাবনা নেই * বসলো পদ্মাসেতুর ৩৮তম স্প্যান , দৃশ্যমান ৫৭০০ মিটার * ২১ নভেম্বার : দেশে নতুন শনাক্ত ২২৭৫, মারা গেছেন ১৭ জন, সুস্থ ১,৭০৯ * ২০২২ থেকে নবম-দশম শ্রেণিতে বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক থাকছে না * ২০ নভেম্বার : আজ শনাক্ত ২২৭৫, মৃত্যু ১৭, সুস্থ ১৭০৯ * ১৯ নভেম্বার : দেশে আজ শনাক্ত ২৩৬৪, মৃত্যু ৩০, সুস্থ ১৯৩৪ জন * করোনাকালে টিউশন ফি ছাড়া অন্য কোন ফি নয় - মাউশি * করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় ব্যাপক প্রস্তুতি রয়েছে - সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী * করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী * ১৯ নভেম্বার : চট্টগ্রামে শনাক্ত আরও ১৬১ *
     19,2020 Thursday at 11:23:35 Share

শব্দ সৈনিক কবি বেলাল মোহাম্মদ এর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

শব্দ সৈনিক কবি বেলাল মোহাম্মদ এর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও শব্দ সৈনিক কবি বেলাল মোহাম্মদের ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী আজ। তিনি ২০১৩ সালের ৩০ জুলাই ভোর চারটা ১০ মিনিটে তিনি রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। তাঁর শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী চিকিৎসা বিজ্ঞানের অগ্রগতির জন্য মৃত্যুর আগেই তিনি নিজ দেহ দান করে যান।

বেলাল মোহাম্মদ ১৯৩৬ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম জেলার সন্দ্বীপ উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা নাম মোহাম্মদ ইয়াকুব এবং মাতা মাহমুদা খানম। ছয় ভাই ও চার বোনের মধ্যে বেলাল মোহাম্মদ ছিলেন পঞ্চম।

১৯৬৪ সালে বেলাল মোহাম্মদ কর্মজীবন শুরু করেন রেডিও পাকিস্তান চট্টগ্রামে। বেতারে চাকরির আগে তিনি চট্টগ্রামের ‘দৈনিক আজাদী’ পত্রিকায় উপ-সম্পাদক হিসেবে কিছুদিন কাজ করেন। মার্চ ১৯৭১-এর শেষ সপ্তাহে বাঙালি জাতি যখন চরম বিভীষিকার মুখোমুখি তখন শব্দসৈনিক আবুল কাসেম সন্দ্বীপিসহ তিনি কয়েকজন বেতার কর্মী নিয়ে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন। বেলাল মোহাম্মদ প্রথমে কেন্দ্রটির নাম ‘স্বাধীন বাংলা বেতার’ নামকরণ করেন, পরবর্তীতে সহকর্মী আবুল কাসেম সন্দ্বীপের অনুরোধে ‘বিপ্লবী’ শব্দটি যোগ করেন ।এ কেন্দ্র থেকেই বংগবন্ধুর দেয়া স্বাধীনতার ঘোষনাটি ২৬ মার্চ প্রচার করে পৃথিবীব্যাপী বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরুর কথা জানিয়ে দেওয়া হয়। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও তথ্য জাতিকে পৌঁছে দিয়েছিলেন। সেই সময় বাঙ্গালির একমাত্র আশা ভরসার জায়গা ছিল স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র। আর এই দুঃসাহসিক পদক্ষেপের মূলে ছিলেন বেলাল মোহাম্মদ।

এই কেন্দ্র হতে ২৬ মার্চ সন্ধ্যা ৭টা ৪০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষনাপত্র প্রথম পাঠ করেন আবুল কাসেম সন্দ্বীপ। এর পর আওয়ামীলীগ নেতা এম এ হান্নানসহ অনেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষনাপত্রটি পাঠ করেন। পরবর্তীতে ২৭ মার্চ সন্ধ্যায় বংগবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতার ঘোষনা পাঠ করেন মেজর জিয়া।

বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ২০১০ সালে তাঁকে ‘স্বাধীনতা পুরস্কার’ প্রদান করা হয়। সদা শুভ্র বসন ও শুভ্র চুলের নির্লোভ এই শব্দসৈনিক স্বাধীনতা পদকটি বাংলাদেশ বেতারকে উৎসর্গ করেন এবং নগদ অর্থ দিয়ে সন্দ্বীপে নিজ গ্রামে কমরেড মুজাফ্ফর আহমদ-লালমোহন সেন ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠা করেন।ভিক্ষুকের হাত কিভাবে কর্মজীবীর হাতে পরিণত করা যায় তার পথ তৈরি করার চেষ্টা করেছেন এই প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে।

তাঁর প্রকাশিত বইয়ের মধ্যে রয়েছে আধুনিক ওস্তাদ ও অন্যান্য গল্পচর্চা, মরণ-উত্তর, গল্পের সংলাপ, স্বপ্নসাধ ক্রসবাঁধ, যাবো কেষ্টপুর, পংক্তিমালা-যুদ্ধপূর্ব, যুদ্ধোত্তর, প্রবর্তক ইত্যাদি।

১৯৭৩ সালে বেলাল মোহাম্মদের স্ত্রী মারা যান। এরপর জীবনে আসে আরেকটি বড় ধাক্কা। ১৯৯৮ সালে মাত্র ৩২ বছর বয়সে একমাত্র ছেলে মারা যান। সেই থেকে একেবারে ভেঙে পড়েন গুণী এই সংগঠক। শেষ জীবনে বড্ড একাকী জীবন যাপন করেছিলেন তিনি।

লেখক, সাংবাদিক ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রেরকর্মী কামাল লোহানী বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে তিনি ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেন। তার হাতে গড়া এই বেতার কেন্দ্র সে সময় যে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেছে। এজন্য মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাসী প্রত্যেক মানুষ তাকে আজীবন মনে রাখবে। কবি, পুঁথিপাঠক সুসাহিত্যিকের প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ৭৬টি।

বিশিষ্ট অভিনেতা ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কর্মী সৈয়দ হাসান ইমাম বলেন, বেলাল মোহাম্মদ যা বিশ্বাস করতেন তার জন্য আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের স্বাধীনতার ঘোষণা পাল্টে দেওয়ার জন্য তাকে যেমন প্রলোভন দেওয়া হয়েছিল, তেমনি চাপও প্রয়োগ করা হয়েছিল তার উপর। তিনি এতটাই দৃঢ়চেতা মানুষ ছিলেন যে, কোন প্রলোভন বা চাপ তাকে দমাতে পারেনি। অবশ্য এ জন্য তাকে বহু বছর বিদেশে থাকতে হয়েছে।

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের এই শব্দসৈনিক সম্পর্কে বিশিষ্টজনরা বলেছেন, বেলাল মোহাম্মদ যা বিশ্বাস করতেন তার জন্য আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। তাঁরা বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধবিরোধী কোনো শক্তিকে এ দেশে কোনোদিন মাথাচারা দিয়ে উঠতে না দিলেই তাঁর প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা জানানো হবে এবং তাঁর আত্মা শান্তি পাবে।

বাঙালির ক্রান্তিকালে,ইতিহাসের বাঁক পরিবর্তনের সময় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে যে জনযুদ্ব হয়েছিলো, ঠিক সময়ে তিনি প্রেরণার বাতিঘর হিসেবে তিনি জাতিকে মুক্তিযুদ্বের সঠিক তথ্য দিতে, মুক্তিকামী জনতাকে প্রেরণা দেয়ার লক্ষে স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী বেতার কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন। যিনি নিজেই একটি ইতিহাস ও ইতিহাসের উপাদান কবি বেলাল মোহাম্মদ ।

যুদ্বকালীন সময়ে এই বেতার কেন্দ্র ছিলো বাঙালির একমাএ আশ্রয় স্থল। জীবনবাজি রেখে তিনি বাঙালির অমূল্য ইতিহাসের ধারক বাহকের ভূমিকা পালন কররে গেছেন। বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার পরে তাকে দিয়ে বহুবার মিথ্যা ইতিহাস লেখাতে চেয়েছে। কিন্তু তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করে গেছেন। তাই সত্যে অবিচল থেকে জাতিকে ঘোষণা বিতর্কের কলংক থেকে বাঁচিয়েছেন।

User Comments

  • সন্দ্বীপ প্রতিদিন